কিভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আবিষ্কার হল?

ওয়েস্ট ইন্ডিজ এর নাম শুনলে প্রথমে হয়ত আমাদের মনে ভেসে উঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট টিমের ছবি। এর কারণ, আমরা যারা ক্রিকেটের সাথে পরিচিত তারা ওয়েস্ট ইন্ডিজ বললে প্রথমেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট টিমের কথাই মনে পড়ে। আমরা হয়ত অনেকেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে একটি দেশ বলে ভাবি, কিন্তু সত্যিটা হচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোন দেশ নয়, বরং এটি হচ্ছে অসংখ্য ছোট ছোট দ্বীপরাষ্ট্র নিয়ে গঠিত একটি উপমহাদেশের মত যেটি ক্যারিবিয়ান অঞ্চল নামেও পরিচিত।

ক্যারিবিয়ান বা ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেশসমূহ

এবার আসল কথায় আসি, কী কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজ নামকরণ করা হয়েছিল এবং কিভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আবিষ্কার করা হয়েছিল সেসব বিষয়ে সংক্ষিপ্তভাবে আলোচনায় আসি।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ আবিষ্কার এবং নামকরণঃ 

আমরা সবাই ক্রিসটোফার কলম্বাস (১৪৫১-১৫০৬) এর নাম শুনেছি। তিনি ছিলেন একজন ইতালিয়ান নাবিক। আমেরিকা আবিষ্কারক হিসেবেও আমরা তাকে চিনি। তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ দেশসমূহেরও আবিষ্কারক। কথিত আছে, ১৪৯২ সালে কলম্বাস মূলত পশ্চিম অঞ্চল হয়ে আটলান্টিক পাড়ি দিয়ে এশিয়া অঞ্চলে আসতে চেয়েছিলেন। তিনি ইউরোপের পশ্চিম দিক থেকে একটা রুট বের করতে চেয়েছিলেন যেখান থেকে তিনি সহজেই এশিয়া আসতে পারবেন। এশিয়া অঞ্চলে আসার কারণ হিসেবে তিনি মনে করতেন এবং জানতেন যে এশিয়া অঞ্চলে তথা ভারতীয় উপমহাদেশ বিভিন্ন ধরনের সম্পদে ভরপুর। আর এ জন্যই তিনি ভারতীয় উপমহাদেশে আসতে চেয়েছিলেন। এশিয়াতে আসার জন্য তিনি ৩ টি জাহাজ ‘নিনা’ (Nina), ‘পিন্তা’ (Pinta) ও ‘সান্তা মারিয়া’ (Santa Maria) নিয়ে সমুদ্র যাত্রা শুরু করেন।

ক্রিস্টোফার কলম্বাস

এশিয়াতে আসার পথটা তার জন্য কঠিন ছিল, কারণ সেসময় ইউরোপ থেকে এশিয়াতে আসতে হলে আফ্রিকা মহাদেশের সমুদ্রতীর ধরে ধরে আসতে হত। কিন্তু তিনি চেয়েছিলেন অন্যপথ দিয়ে ভারত উপমহাদেশে আসতে। কিন্তু তিনি একটা ভুল করেছিলেন সমুদ্র যাত্রা পথে। তিনি তার সাথে করে ম্যাপ নিয়ে যান নি যা তাকে সমুদ্র পথে ভুল দিকে নিয়ে যায়। আর এভাবেই তিনি ভুল পথে আটলান্টিক সাগর পাড়ি দিয়ে ১৪৯২ সালের ১২ অক্টোবর একটা নতুন ছোট দ্বীপে নামেন যার নাম স্যান স্যালভ্যাডর (San Salvador) যদিও তিনি এ অঞ্চলকে দক্ষিণ ভারতের কোন একটা অঞ্চল মনে করেছিলেন। আর তাই তিনি সেখানকার আদিবাসীদেরকে ভারতীয় (Indian) হিসেবেই মনে করতেন। উল্লেখ্য যে, আমেরিকাসহ ওয়েস্ট ইন্ডিজের আদিবাসীরা তাদের শরীরে লাল মাটি মাখতো বলে ইউরোপের লোকেরা এই অঞ্চলের আদিবাসীদেরকে রেড ইন্ডিয়ান (Red Indian) বলে ডাকতো।

কলম্বাস স্যান স্যালভাডর থেকে পরের মাসেই কিউবা (Cuba) ভ্রমণ করেন। তিনি কিউবা অঞ্চলকে সে সময় চীন দেশ ভেবেছিলেন এবং  হিসপেনিওলা (Hispaniola) ভ্রমণের সময় তিনি এই অঞ্চলকে জাপান ভেবেছিলেন। কলম্বাস ওয়েস্ট ইন্ডিজ অঞ্চল, ক্যারিবিয়ান সমুদ্র, মেক্সিকো উপসাগর এবং আমেরিকা অঞ্চল আবিষ্কার করেছিলেন। তিনি ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে মোট ৩ বার ভ্রমণ করেছিলেন। কিন্তু তিনি তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কখনই জানতে পারেন নি যে, তিনি আসলে ভারতে আসতে পারেন নি, বরং তিনি একটা নতুন বিশ্ব আবিষ্কার করেছিলেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পতাকা

তার মৃত্যুর পরে আবিষ্কার হল যে, ভারত মনে করে কলম্বাস যেখানে গিয়েছিলেন সেটি অন্য একটি মহাদেশ। কিন্তু পরবর্তীতে যেসব ইউরোপের লোকেরা এখানে এসেছিল তারা সবাই এটিকে ভারত নামেই ডাকতো। আর তাই পরবর্তীতে ইউরোপের শাসকগোষ্ঠী এবং জনগণ এটিকে পশ্চিম ভারত (West India তথা Indies – অনেকগুলো দ্বীপরাষ্ট্রের জন্য বহুবচন হিসেবে) নামে ডাকতো। কারণ ইউরোপেরা লোকেরা এশিয়া মহাদেশের ভারতকে পূর্ব ভারত (East India) হিসেবেই মনে করতো। আরেকটি ব্যপার হচ্ছে, ভারতসহ ইন্দোনেশিয়া, মালায়শিয়াসহ দক্ষিণ-পূর্ব দেশগুলোকে ইউরোপের লোকেরা তখন East Indies বলে জানতো। উল্লেখ্য যে, ব্রিটিশরা যখন এই ভারতে বাণিজ্যের নাম করে যখন তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছিল তখন তাদের সেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম ছিল ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি (East India Company)।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট টিমঃ

ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের বিভিন্ন দেশের সমন্বয়ে গঠিত হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড। ক্রিকেটের দিক থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ একটি পরিপূর্ণ ক্রিকেট টিম। লর্ড ক্লাইভের নেতৃতে ১৯৭৫ সালে প্রথম ক্রিকেট বিশ্বকাপ এবং ১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় বিশ্বকাপ জয়লাভ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথম দুই বিশ্বকাপ জেতার পর ওয়েস্ট ইন্ডিজের পতাকায় ক্রিকেট স্টাম্প সংযোজিত করা হয়। ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপেও ওয়েস্ট ইন্ডিজ ফাইনাল খেলেছিল কিন্তু ভারতের কাছে তারা হেরে গিয়ে প্রথম হ্যাট্রিক শিরোপা অর্জন থেকে বঞ্চিত হয়। এছাড়া টি২০ বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০১২ সালে এবং ২০১৬ সালে চ্যাম্পিয়ন হয়।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল

ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেশসমূহঃ

ওয়েস্ট ইন্ডিজ বা ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের কিছু কিছু দেশ স্বাধীনতা লাভ করেছে ইউরোপের বিভিন্ন শাসকদেশ থেকে এবং বাকী কিছু দেশ এখনো ইউরোপের কিছু দেশের অধীনে আছে অর্থাৎ এরা এখনো স্বাধীনতা লাভ করে নি। ক্যারিবিয়ান দেশসমূহের নামগুলো হচ্ছে-

ক্যায়মন আইল্যান্ড (যুক্তরাজ্য)
কিউবা
ডমিনিকান রিপাবলিক
হাইতি
জ্যামাইকা
পুয়োর্তো রিকো (যুক্তরাষ্ট্র)
এঙ্গুইলা (যুক্তরাজ্য)
এন্টিগুয়া এন্ড বারবুডা
এরুবা (নেদারল্যান্ড)
বারবাডোস
বোনায়ার (নেদারল্যান্ড)
ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডস (যুক্তরাজ্য)
কুরাকাও (নেদারল্যান্ড)
ডমিনিকা
গ্রেনাডা
গুয়াডেলপ (ফ্রান্স)
মার্টিনিক (ফ্রান্স)
মন্টসেরাট (যুক্তরাজ্য)
নুয়েভা এসপার্তা (ভেনেজুয়েলা)
সাবা (নেদারল্যান্ড)
সেন্ট বার্থেলেমি (ফ্রান্স)
সেন্ট কিটস এন্ড নেভিস
সেন্ট লুসিয়া
সেন্ট মার্টিন (ফ্রান্স)
সেন্ট ভিনসেন্ট এন্ড দ্য গ্রেনাডাইন্স
সেন্ট ইউএস্টেশাস (নেদারল্যান্ড)
সেন্ট মার্টেন (নেদারল্যান্ড)
ট্রিনিদাদ এন্ড টোব্যাগো
গায়ানা
যুক্তরাষ্ট্র ভার্জিন আইল্যান্ডস (যুক্তরাষ্ট্র)
ফেডেরাল ডিপেনডেনসিস অভ ভেনেজুয়েলা (ভেনেজুয়েলা)
বাহামাস
টার্কস এন্ড কায়কস আইল্যান্ড (যুক্তরাজ্য)

লেখাঃ মোঃ আবু বকর সিদ্দিক লিটন

Leave a comment

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *